রোযনামচার পাতা

  • যিলক্বদ ১৪৩০হিঃ (১৪)

    বৈশাখী মেলায়

    লিখেছেনঃ শরীফুল আলম, নেত্রকোনা

    নেত্রকোনা সরকারী কলেজমাঠে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা বসেছে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে নাচ-গান হচ্ছে দেদার। বুদ্ধিজীবী নামের কিছু লোক বয়ান-ভাষণও দিয়েছেন। একজন বললেন খুব ‘চমৎকার’ কথা, ‘সংস্কৃতিতে যেমন পরিবর্তন আসে, ধর্মেও পরিবর্তন আসে। ...

    বিস্তারিত »
  • যিলক্বদ ১৪৩০হিঃ (১৪)

    একটি রোযনামচা

    লিখেছেনঃ আব্দুল হাকীম, বাইতুস্‌সালাম, উত্তরা, ঢাকা

    প্রতিদিনের মত আজো ফজরের পর সবুজ ঘাসের উপর হাঁটার জন্য বাইরে বের হলাম। পরীক্ষা গতকাল শেষ হয়েছে, তাই মনটা এখন ভারমক্ত। যাকে বলে আমি এখন অত্যন্ত খোশমেজাজে আছি। ...

    বিস্তারিত »
  • যিলক্বদ ১৪৩০হিঃ (১৪)

    সম্পাদকের রোযনামচা

    ২০-১০-৩০ হিঃ - ‘বাইতুল্লাহর মুসাফির’-এর সম্পাদনা সম্পূর্ণ করা গেলো না। সবাই পরামর্শ দিলেন, যেভাবে আছে সেভাবেই এখন ছাপা হোক; কারণ পুষ্প অনেক পিছিয়ে যাচ্ছে। অনিচ্ছা সত্ত্বেও পরামর্শটি মেনে নিতে হলো। আজ পুষ্পের কাজ শুরু করলাম। সম্পাদকীয়টি আগেই লেখা ছিলো।

    ...

    বিস্তারিত »
  • রমযান ১৪৩০ হিঃ (১৩)

    সম্পাদকের রোযনামচা

    আমার একটি প্রিয় গাছ ছিলো, গন্ধরাজ। আমার সঙ্গে তার হৃদয়ের বন্ধন ছিলো বিশবছরের বেশী। গাছটি ছিলো আমার এক প্রিয় ছাত্রের স্মৃতি। গাছটি কিছুদিন আগে নিহত হয়েছিলো এক নিষ্ঠুর লোকের হাতে। আমার প্রিয় গন্ধরাজের মৃত্যুশোকে পুষ্পের পাতায় আমি লিখেছিলাম, ‘গন্ধরাজ গাছটি মারা গেছে’। সেই লেখা একটি মেয়ের দিলের জখম তাজা করে দিয়েছিলো বলে সে আমার কাছে একটি মর্মস্পর্শী চিঠি লিখেছে, যা পুষ্পের বর্তমান সংখ্যায় ছাপা হয়েছে। কথা প্রসঙ্গে আমার স্ত্রীকে বললাম, ‘গন্ধরাজ গাছটি দুই দুইটি বন্যা সহ্য করে বেঁচে ছিলো।’ সঙ্গে সঙ্গে তিনি

    ...

    বিস্তারিত »
  • রমযান ১৪৩০ হিঃ (১৩)

    এক বৃষ্টির বিকেলে

    লিখেছেনঃ উম্মে হাবীবা, তামান্না, বাংলাবাজার- ১১০০

    আজ সারা দিন আকাশটা কাঁদছে। কাঁদছে মানে বৃষ্টি ঝরছে। আমরা যখন কাঁদি, আমাদের চোখ থেকে অশ্রু ঝরে, তাই আকাশ থেকে যখন বৃষ্টি ঝরে, কবিরা বলেন, আকাশটা কাঁদছে। আকাশ কাঁদছে, আমারও মনটা কাঁদছে...

    বিস্তারিত »
  • রমযান ১৪৩০ হিঃ (১৩)

    রোযনামচার একটি পাতা

    লিখেছেনঃ ইমরানা আমাতুল্লাহ, মুন্সীগঞ্জ

    সম্পাদক ভাইয়া দু‘আ করেছেন, আমরা যেন সুখে থাকি, যেমন সুখে থাকে পায়রা, আর চড়ুইপাখী; আমার জানতে ইচ্ছে করছিলো কেমন সুখে থাকে ওরা।...

    বিস্তারিত »
  • রমযান ১৪৩০ হিঃ (১৩)

    একসাথে ঈদের আনন্দ

    লিখেছেনঃ সাদিয়া বিনতে রাশীদ

    আমার ঈদের নতুন কাপড় হয়েছে তিনজোড়া। একটির চেয়ে একটি সুন্দর। আব্বু এনেছেন দুই জোড়া, আম্মু দিয়েছেন একজোড়া। আব্বু এনেছে বাজার থেকে, আর আম্মু তৈরী করেছেন ঘরে নিজের হাতে। কী যে খুশী হলাম!...

    বিস্তারিত »
  • রমযান ১৪৩০ হিঃ (১৩)

    আমার নানা

    লিখেছেনঃ ওবায়দুল্লা, আকুয়া মড়লবাড়ী মাদরাসা, মোমেনশাহী

    প্রকৃতির নিয়মে মানুষ পৃথিবীতে আসে, আবার বিদায় নেয়। যারা উন্নত ও মহৎ আদর্শের অধিকারী তারা মানুষের হৃদয়ের মাঝে বেঁচে থাকে। মৃত্যুর পরো তারা অমর হয়ে থাকে।...

    বিস্তারিত »
  • রমযান ১৪৩০ হিঃ (১৩)

    রোযনামচার একটি পাতা - ২১-৪-৩০ হিঃ

    লিখেছেনঃ শোআইব, বোরহানুদ্দীন, ভোলা

    আজ প্রথম আলোর সম্পাদকীয়টি পড়ে ভাবলাম, আজকের রোযনামচায় সম্পাদকীয়টির সারকথাটা লিখি। এটাও তো লেখা শেখার একটি পথ! আর রোযনামচার মূল উদ্দেশ্যও তো লেখা শেখা।...

    বিস্তারিত »
  • রমযান ১৪৩০ হিঃ (১৩)

    হুযূরের আম্মার ইনতিকাল

    লিখেছেনঃ আবু তালহা সাজিদ, মাদরাসাতুন্‌নূর, মোমেনশাহী

    প্রতিটি প্রাণীকে মৃত্যুর স্বাদ আস্বাদন করতে হবে, এটাই কুদরতের বিধান। আমাদের প্রিয় হুযূরের আম্মা অসুস্থ ছিলেন। গতকাল আমরা কোরআন খতম করে দু‘আ করেছি, কিন্তু তাঁর সময় এসে গিয়েছিলো।...

    বিস্তারিত »

অন্যান্য বিভাগ

সর্বাধিক পঠিত